লন্ডনে প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠানের বাইরে বাংলাদেশী সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মীদের বিক্ষোভ

0
109

স্টাফ রিপোর্টার ঃ

বাংলাদেশে সরকারী বাহিনী কর্তৃক মানবাধিকার লংঘন এবং তথাকথিত ৫৭ ধারার নামে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা হরনের প্রতিবাদে লন্ডনে আওয়ামী লীগের শোক দিবসের অনুষ্ঠানের বাইরে প্রতিবাদ সমাবেশ  করেছে বাংলাদেশী ভিকটিম জার্নালিস্ট ইন ইউকে‘র ব্যানারে ব্রিটেনে অবস্থানরত বাংলাদেশী সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মীরা । সাংবাদিক মাহবুব আলী খানশূরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সমাবেশ পরিচালনা করেন মানবাধিকার কর্মী তরিকুল ইসলাম।

সমাবেশ বক্তারা বলেন, অবৈধ আওয়ামী লীগ সরকার পর পর দুই বার জনগনের ম্যান্ডেট না নিয়ে ক্ষমতায় এসে নিজেদের ইচ্ছানুযায়ী দেশ চালাচ্ছে । প্রথমবার তারা ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে এবং পরের বার নির্বাচনের আগের রাতে ভোট চুরির মাধ্যমে ক্ষমতায় আসে । যা সকল আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় প্রাকাশিত হয়েছে। অবৈধভাবে ক্ষতায় টিকে থাকতে গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রন করছে তারা । এছাড়া বিরোধী মত ও দলকে নিয়ন্ত্রন করে মানবাধিকার লংঘনের মতো জঘন্য কাজ করছে ।

সভাপতির বক্তব্যে মাহবুব আলী খানশূর বলেন, আওয়ামী সরকারের অপকর্ম প্রকাশ যেনো না হয় সেজন্য সাংবাদিক সম্পতি সাগর – রুনিকে হত্যা করা হয়েছে । এ হত্যাকান্ডের বিচার তো দূরের কথা, ৮ বছর পেরিয়ে গেলেও সরকারের নির্দেশে এর জন্য কোন চার্জশিট দিচ্ছে না পুলিশ । দেশ বিদেশে বহু সাংবাদিক সরকারের সমালোচনা করায় তাদের মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হচ্ছে। দেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সুনিশ্চিত করতে ও সাংবাদিক নির্যাতন বন্ধ এবং সকল বন্ধ গণমাধ্যম খুলে দেয়ার দাবি করেন তিনি ।

সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ইউনিভার্সাল ভয়েস ফর জাস্টিসের চেয়ারম্যান সাঈদ বাকী, এশিয়ান বাংলার বিশেষ প্রতিনিধি ফরিদুল ইসলাম,ইউনির্ভাসাল ভয়েস ফর জাস্টিসের ভাইস চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলাম, দৈনিক মানব জমিনের পলিটিকাল রিপোর্টার কাফি কামাল, অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম ইউকে‘র সেক্রেটারী মোঃ দেলোয়ার হোসেন, ইউনিভার্সাল ভয়েস ফর জাস্টিসের রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং সেক্রেটারী মোহম্মদ মাজহারুল ইসলাম ভূঁইয়া, দৈনিক সোনার সিলেটের সহ সম্পাদক  আবু তাহের মোঃ বাহার , মানবাধিকার কর্মী মির্জা সুজন মিয়া, মানবাধিকার কর্মী মোহাম্মদ তারেকুল ইসলাম, নুসরাত জাহান সানি, ইমরান খান, কামরুল ইসলাম অনিক , যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতা ও অনলাইন এক্টিভিস্ট নাজমুল আহসান,  মুহাম্মদ কবির হোসাইন, কাজী মোহাম্মদ নুরুজ্জামান, মোঃ খালেদ মাহামুদ রাকিব প্রমুখ ।

উল্লেখ্য , প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চোখের চিকিৎসার জন্য ১৫ দিনের সফরে যুক্তরাজ্য অবস্থান করছেন। তার এই সফরে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ শোকের মাসের কর্মসূচী নেত্রীকে দিয়ে উদ্বোধন করাতে ৩ আগষ্ট শনিবার এক আলোচনা সভার আয়োজন করে। সেন্ট্রাল লন্ডনের মেথডিস্ট হলে অনুষ্ঠিত ওই অনুষ্ঠানের বাইরে বাংলাদেশী ভিকটিম জার্নালিস্ট ইন ইউকে‘র ব্যানারে ব্রিটেনে অবস্থানরত বাংলাদেশী সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মীরা ওই বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে।

এদিকে  যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের শোক দিবস উপলক্ষে  আয়োজিত আলোচনা সভায় ব্রিটেনের বাংলা মিডিয়ার বেশ কয়েকজন সাংবাদিককে দাওয়াত দিয়ে হলে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। আর এর প্রতিবাদে ব্রিটেনের বাংলা মিডিয়ার সাংবাদিকদের সংগঠন লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠন এবং ব্রিটেনে সফররত আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের খবর প্রকাশে বিরত থাকার ঘোষনা দিয়েছে।