ভোলা হত্যাকান্ডে জড়িতদের শাস্তির দাবী যুক্তরাজ্য প্রবাসী বাংলাদেশীদের

0
57

ব্রিটেন থেকে সংবাদদাতা
ইসলাম অবমাননার প্রতিবাদে আয়োজিত ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় সাধারণ মুসল্লিদের শান্তিপূর্ণ সমাবেশে পুলিশ কর্তৃক নির্বিচারে গুলি চালিয়ে কমপক্ষে ৫ জনকে হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে যুক্তরাজ্যে অবস্থিত ভোলার জাতীয়তাবাদী ও ইসলামী মনোভাবের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। এক যৌথ প্রতিবাদ বার্তায় নেতৃবৃন্দ বলেন, পুলিশের বর্বরতা ও নৃশংসতা সীমা ছাড়িয়ে গেছে। নিরীহ মুসল্লিদের উপর এমন বর্বরতায় দেশবাসী স্তম্ভিত ও প্রচন্ড ক্ষুব্ধ। ঘটনার সাথে জড়িত দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়ার দাবী করেন নেতৃবৃন্দ।
সাবেক ছাত্রনেতা ও যুক্তরাজ্য স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সম্পাদক আব্বাস উল্লাহ, ইস্ট লন্ডন বিএনপি নেতা তালেব আহমেদ, সাবেক ছাত্রশিবির নেতা কাজী মো. নুরুজ্জামান, তরিকুল ইসলাম, আলী শাহজাদা, সাবেক ছাত্রনেতা সাইফুর রহমান, সাবেক ছাত্রনেতা ও টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সহ সভাপতি ইসতিয়াক মাহবুব, সাবেক ছাত্রনেতা ও বরগুনা জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক শামীম আহমেদ এক লিখিত বিবৃতিতে এ দাবী জানান।
ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের চন্দ্র মোহন বৈদ্দের ছেলে বিপ্লব চন্দ্র শুভর ফেসবুক আইডি থেকে তার বন্ধু তালিকার বেশ কয়েকজনের কাছে আল্লাহ এবং রাসূলকে (সাঃ) কে অবমাননা করে কুরুচিপূর্ণ ভাষায় মেসেজ আসে। এই ন্যাক্কারজনক উস্কানীমূলক ধর্মদ্রোহী কাজের প্রতিবাদ ও কটুক্তিকারীকে গ্রেফতারের দাবীতে সাধারণ মুসল্লিদের শান্তিপূর্ণ সমাবেশে আজ পুলিশ বিনা উস্কানিতে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে হত্যা করেছে কিশোর ছাত্রসহ ৫ জন মুসল্লিকে।
এ বর্বরতায় আহত হয়েছে আরো প্রায় ২০০ মুসল্লি, যাদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কজনক। এসব আহত মুসল্লীদেরকে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা নিতেও বাধা প্রদান করা হচ্ছে। একটি শান্তিপূর্ণ সমাবেশে নিরীহ মুসল্লিদের উপর গুলি করে হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে পুলিশ বর্বরতা ও নির্মমতার যে পরিচয় দিয়েছে তার নিন্দা জানানোর ভাষা আমাদের জানা নেই। এর আগেও পুলিশ এমন বর্বর হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে। বর্বরতা কোন পুলিশের কাজ হতে পারেনা বরং তা ঘাতকের কাজ। প্রতিটি হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত পুলিশ সদস্যরা জনগণের কাছে চিহ্নিত।
নেতৃবৃন্দ বলেন, ইসলাম অবমাননাকারী অপরাধীর বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো নিরাপরাধ মুসলমানদেরকে হত্যা কোন সভ্য ও দায়িত্বশীল বাহিনীর কাজ হতে পারেনা। দলকানা দায়িত্বহীন পুলিশের এই নৈতিকতা বিবর্জিত কাজ ধর্ম অবমাননাকে উৎসাহিত করেছে। একই সাথে হত্যাকারী পুলিশ সদস্যরা নিজেদের ইসলাম বিদ্বেষী বিকৃত রুপটিও প্রকাশ করেছে। এই হত্যাযজ্ঞ প্রতিটি মুসলমানের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ করেছে। অবিলম্বে এই পরিকল্পিত হত্যাযজ্ঞের সাথে জড়িত পুলিশ সদস্যদের গ্রেফতার ও বিচারের আওতায় আনতে হবে। একইসাথে ইসলাম অবমাননাকারী বিপ্লব চন্দ্র শুভকে বিচারের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনতে হবে।
ইসলাম বিদ্ধেষী সরকার ও তার সেবাদাস পুলিশের জানা উচিৎ, ইসলামের উপর যেকোন আঘাত প্রয়োজনে জীবন দিয়ে মোকাবেলা করতে এদেশের আপামর ছাত্রজনতা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। সরকারের দায়িত্বহীন ভূমিকায় কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটলে তার দায়ভার ইসলাম বিদ্বেষী সরকার ও তাদের সেবাদাস পুলিশকে গ্রহণ করতে হবে।